গর্ভাবস্থায় সহবাস করা কতটা নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় সহবাস করা কতটা নিরাপদ সে ব্যাপারে প্রত্যেক গর্ভবতী মহিলার জানা অত্যন্ত জরুরী। কারণ অন্তঃসত্ত্বা নারী এবং গর্ভের সন্তানের জন্য ছোটখাটো কিছু ভুল বড় ধরনের বিপদ বয়ে আনতে পারে। সুতরাং বিপদে পড়ার পূর্বেই চলুন জেনে নেই গর্ভাবস্থায় সহবাস করা কতটা নিরাপদ এবং সহবাস করার নিয়ম সম্পর্কে। 

Ask Question

 

গর্ভাবস্থায় সহবাস করা যাবে কি

অনেকে মনে করে থাকেন যে শুরুর দিকে গর্ভাবস্থায় সহবাস নিরাপদ হলেও শেষের তিন মাস অনিরাপদ সময়। কিন্তু এ ধারণাটি সঠিক নয়। তবে এ সময় সহবাস করার ক্ষেত্রে শারীরিক জটিলতা ও গর্ভাবস্থার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা উচিত। যদি এ ধরনের কোনো সমস্যা না থাকে তবে কোন ঝুকি ছাড়াই আপনি গর্ভাবস্থায় সহবাস করতে পারবেন। কিন্তু স্বাস্থ্য সংক্রান্ত জটিলতা থাকলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলতে হবে। 

Honey Sponsored

 

কখন গর্ভাবস্থায় সহবাস এড়িয়ে চলা উচিত

স্বাস্থ্য জটিলতা এবং গর্ভজনিত কোন সমস্যা না থাকলে সাধারণত সহবাসে তেমন কোনো সমস্যা পরিলক্ষিত হয় না। তবুও চিকিৎসকরা কিছু ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় সহবাস থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। সেগুলো হলো

  • যদি গর্ভবতী মহিলার জরায়ুর মুখে কোন জটিলতা থাকে।
  • অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় কোনো কারণে মাসিকের রাস্তা দিয়ে রক্তপাত হলে।
  • পূর্ববর্তী গর্ভকালীন সময়ে নির্ধারিত সময়ের আগেই সন্তান প্রসব করে থাকলে।
  • একই সময়ে দুই বা তার বেশি সন্তান ধারণ করে থাকলে।
  • যদি কোন কারণে গর্ভফুল নিচে নেমে এসে রক্ত জমাট বাঁধে।
  • পূর্বে কখনো গর্ভপাত করে থাকলে।
  • এবং অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় ভূগলে। 

 

গর্ভাবস্থায় সহবাস করার নিয়ম

শারীরিক কোনো সমস্যা না থাকলে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় সহবাস করা নিরাপদ হলেও সঠিক পজিশন না মানার ফলে সমস্যায় পড়তে হতে পারে। তাছাড়া এ সময় কিছু পজিশন রয়েছে যেগুলোতে সবাই স্বাচ্ছন্দ বোধ করতে পারে না। সে ক্ষেত্রে স্বামী-স্ত্রী উভয়ের উচিত বিভিন্ন পদ্ধতি এবং পজিশন অবলম্বন করা। তবে মাথায় রাখতে হবে গর্ভের সন্তান যেন কোনোভাবেই আঘাতপ্রাপ্ত না হয়। 

গর্ভাবস্থায় সহবাসের সময় আপনার সঙ্গিনীর শরীর এবং পেট অত্যন্ত ভারী হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে সঙ্গিনীকে ওপরে রেখে সহবাস করতে গেলে অস্বস্তি বোধ হতে পারে। তাছাড়া অতিরিক্ত নড়াচড়ার ফলে শরীরে ব্যথা অনুভব হতে পারে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে যেকোনো এক কাত হয়ে সহবাস করে দেখতে পারেন। তবে সবচেয়ে কার্যকরী এবং সহজ পদ্ধতি হলো সঙ্গিনীর পেছনে অবস্থান করে সহবাস করা। সেটা হতে পারে কাত হয়ে শুয়ে কিংবা হাটু গেড়ে। 

তবে হাঁটু গেড়ে সহবাসের সময় অবশ্যই হাটুর নিচে নরম কম্বল কিংবা বালিশ ব্যবহার করতে ভুলবেন না। অন্যথায় শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে আঘাত লাগার সম্ভাবনা থেকে যায়। আবার এ সময় পুরুষাঙ্গ যোনির অত্যন্ত গভীরে প্রবেশ করলেও অসস্থি লাগতে পারে। সুতরাং এই ব্যপারগুলো নিজেরা নিজেদের মত করে সাজিয়ে নিতে পারেন যে কিভাবে সহবাস করলে আপনারা দুজনেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। 

আরো পড়ূনঃ মেয়েদের অতিরিক্ত সাদা স্রাব বন্ধ করার উপায়

 

গর্ভাবস্থায় সহবাস করার উপকারিতা

অন্তঃসত্ত্বা কালীন অনেক সময় স্বামী এবং স্ত্রী উভয়েরই সহবাসের প্রবণতা অনেকাংশে কমে যায়। তবে সঠিক উপায়ে গর্ভাবস্থায় সহবাস করলে শারীরিক এবং মানসিক দিক থেকে শান্তি পাওয়া যায়। এতে করে গর্ভবতী মা স্ট্রেস মুক্ত থাকতে পারেন। আর চাপমুক্ত থাকা গর্ভের সন্তানের জন্য অত্যন্ত জরুরী। সুতরাং এসময় নিয়ম মেনে গর্ভাবস্থায় সহবাস করা উচিত। 

যেহেতু গর্ভবতী মা এবং গর্ভের শিশুর জন্য গর্ভকালীন সময় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, সে ক্ষেত্রে গর্ভবতী মায়ের শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি সহবাসের দিকেও নজর দিতে হবে। এতে করে গর্ভবতী মা এবং শিশু উভয় সুস্থ থাকবে। আপনাদের যদি এ সম্পর্কে আরো কোন কিছু জানার থাকে তবে নিশ্চয়ই আমাদেরকে প্রশ্ন করতে ভুলবেন না। 

RelatedPosts

ই ক্যাপ এর উপকারিতা ও অপকারিতা

ই ক্যাপ এর উপকারিতা ও অপকারিতা

ই ক্যাপ ক্যাপসুল মূলত ভিটামিন ই মুখে খাওয়া হয় এবং প্রয়োজনে বাহ্যিকভাবেও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের তথ্য অনুযায়ী ই-ক্যাপ ক্যাপসুল এর অনেক উপকারিতা রয়েছে। ভিটামিন ই... Continue

বিয়ের পর জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি

বিয়ের পর জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সমূহ। প্রাকৃতিক ও চিকিৎসার মাধ্যমে।

বিয়ের পর জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সমূহ দাম্পত্য জীবনের অন্যতম একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাড়ায়। জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নিয়ে বিশেষ করে নবদম্পতিরা দ্বিধাদ্বন্দের মধ্যে ভুগে থাকেন। কোন পদ্ধতি অবলম্বন করলে... Continue

মাসিক না হওয়ার কারণ

নিয়মিত মাসিক না হওয়ার কারণ গুলো জেনে নিন

মাসিক না হওয়ার কারণ হিসেবে সাধারণত অনেকেই গর্ভধারণকে দায়ী করে থাকেন। কিন্তু গর্ভধারণ ছাড়াও এমন অনেক কারণ রয়েছে যেগুলো সঠিক সময়ে মাসিক হতে বাধা প্রদান করে। সাধারণত সাধারণত... Continue

বাচ্চা হওয়ার পর পিল খাওয়ার নিয়ম

বাচ্চা হওয়ার পর পিল খাওয়ার নিয়ম কী

বাচ্চা হওয়ার পর পিল সেবনের নিয়ম গুলো সাধারণত অন্যান্য মহিলাদের মতই। তবে এক্ষেত্রে কিছু ব্যতিক্রম পদ্ধতি লক্ষ্য করা যায়। সাধারণত মহিলাদের সন্তান প্রসব করার ২১ দিন পর থেকেই... Continue

ফেমিকন-এর-ছবি

ফেমিকন খাওয়ার নিয়ম, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, দাম ও উপকারিতা

ফেমিকন খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে প্রত্যেক বিবাহিত মহিলা এবং পুরুষদের অবগত হওয়া উচিত। আমাদের দেশের প্রায় ৪০% বিবাহিত মহিলারা জীবনের কোন না কোন সময়ে ফেমিকন পিল সেবন করে থাকেন।... Continue

female health

নোরিক্স খেলে কি হয়?

নোরিক্স খেলে কি হয় এই প্রশ্নটি সবচেয়ে বেশি দেখা যায় যারা নতুন বিয়ে করেছেন কিংবা ইমার্জেন্সি পিলগুলো সম্পর্কে জানতে চান তাদের ক্ষেত্রে। বলে রাখা ভালো যে নোরেক্স হলো... Continue